‘আজকের আমি মায়ের অবদানের জন্যই’


আজকালের কণ্ঠ প্রকাশের সময় : মে ১২, ২০২৪, ১১:২৯ পূর্বাহ্ন /
‘আজকের আমি মায়ের অবদানের জন্যই’

বিনোদন ডেস্ক : মা— পৃথিবীর সবচেয়ে মধুরতম ডাক। সন্তানদের একমাত্র শান্তির জায়গা। মায়ের পরম মমতায়, ভালোবাসায়, আদরে-যত্নে লালিত হতে থাকে ছোট্ট শিশুটি। মা-ই সন্তানদের ভালো বন্ধু। যার সঙ্গে মন খুলে কথা বলা যায়, হাসিতে মেতে ওঠা যায়, সব শেয়ার করা যায়। ‘এখনও মা আমার ভালো বন্ধু, মা দিবসে মাকে স্যালুট’— মা দিবসে ঠিক এভাবেই বললেন শোবিজের জনপ্রিয় নৃত্যশিল্পী, মডেল ও অভিনেত্রী নাদিয়া আহমেদ।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে অসংখ্য নাটকে কাজ করেছেন এই অভিনেত্রী। তার সময়ের অনেকেই অভিনয় থেকে দূরে থাকলেও তিনি এখনও অভিনয়ে প্রচণ্ড ব্যস্ত। তবে অভিনেত্রীর আজকের এই অবস্থানের পেছনে রয়েছেন তার মা।

আজ বিশ্ব মা দিবস। আর এই উপলক্ষে দেশের একটি গণমাধ্যমে মাকে নিয়ে কথা বলেন নাদিয়া। অভিনেত্রী জানান, জীবনে তিনি যা হয়েছেন, যতটুকু মানুষের ভালোবাসা পেয়েছেন, দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছেন, তার সবকিছুর জন্য রয়েছে মায়ের অবদান।

নাদিয়া বলেন, ‘আমি যা হয়েছি, যতটুকু মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেছি, দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছি, তার সবকিছুর জন্য মায়ের অবদান রয়েছে। মার সাপোর্টের কারণেই এতদূর আসতে পেরেছি। মায়ের জন্যই আমার আজকের এই অবস্থান। মা না থাকলে সম্ভব হত না।’

তিনি আরও বলেন, ‘খুব ছোটবেলায় একটু একটু গান করতেন মা। তার খুব ইচ্ছে ছিল আমিও গান শিখব। কিন্তু মা দেখলেন, গান শুনলেই আমি নাচতে শুরু করি। এরপর স্কুলে ভর্তির আগেই আমাকে নাচ শেখানোর জন্য দিয়ে দেন মা। শিশু একাডেমিতে কয়েক বছর নাচ শিখি মায়ের আগ্রহ ও ভালোবাসার কারণে।’

অভিনেত্রী বলেন, ‘আমি একটু বড় হওয়ার পর বাফায় ভর্তি করিয়ে দেন মা। ওখানে বেশ কয়েকবছর লেগে যায় কোর্স শেষ করতে। মা আমাকে ক্লাস করতে নিয়ে যেতেন। আমি যাতে ভালো ফলাফল করতে পারি তার জন্য তাগিদ দিতেন, সবসময় প্রেরণা যোগাতেন। মায়ের জন্যই বাফা থেকে নাচের কোর্স করতে পেরেছি।’

নাদিয়া বলেন, ভিকারুননিসা নুন স্কুলে পড়াশুনা করেছি আমি। একবার চার শাখায় আমি প্রথম হয়েছিলাম। একদিকে নাচ শেখা, আরেকদিকে স্কুলের পড়া— সবই সম্ভব হয়েছে মায়ের জন্য। তিনি মন থেকে চেয়েছেন বলেই এতকিছু সম্ভব হয়েছে। মা ভালোবাসা দিয়ে, মমতা দিয়ে লেগেছিলেন’।

স্কুলজীবনে ‘বারো রকম মানুষ’ নাটকে অভিনয় করি। সেইসময়ও মায়ের ভূমিকাই বেশি। মা সবসময় চাইতেন ভালো একজন মানুষ হই এবং সংস্কৃতিচর্চা করি। আরও বড় হয়ে যখন শুটিং করতে থাকি, মা সবসময় কাছে থাকতেন। মা শুধু আমার মা নন, আমার বন্ধু। মা আমার ভালো বন্ধু’।

‘মা ভালো বন্ধু বলেই তার সঙ্গে সবকিছু শেয়ার করতে পারি। সব কথা খুলে বলতে পারি। এখনও মা আমার সবচেয়ে ভালো বন্ধু। মা দিবসে মাকে স্যালুট। মার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা। সত্যিই মায়ের অবদানের কথা কখনোই বলে শেষ করা যাবে না।