সরকার হটানোর ষড়যন্ত্র চলছে, ঐক্যবদ্ধ হতে হবে: ওবায়দুল কাদের

নিউজটি শেয়ার করুন

কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে এখন চক্রান্ত শুরু হয়েছে, ষড়যন্ত্রও চলছে সরকার হটানোর। এ ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। ষড়যন্ত্রকারীদের চিহ্নিত করে এদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। এজন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ হতে হবে, ঐক্যবদ্ধ থাকলে এমন কোনো শক্তি নেই আওয়ামী লীগকে পরাজিত করবে।

বুধবার বিকালে কবিরহাট সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির মহাসচিবকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ফখরুল সাহেব আপনারা আমাদের নেত্রীকে নিয়ে যেভাবে কথা বলেন, যে ভাষায় কথা বলেন এগুলো ঠিক না। সরকারের পতন ঘটাবেন? আল্লাহ যাদের ক্ষমতায় রাখবে তাদের কেউ হটাতে পারবেন না, পতন আপনাদের হবে। ২০০৮, ২০১৪ ও ২০১৮ সালে জনগণ আপনাদের পতন ঘটিয়েছে। আন্দোলন ১৩ বছর করেছেন ১৩ ঘণ্টাও রাস্তায় দাঁড়াতে পারেননি, পতন আপনাদের হচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন রুমির সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক জহিরুল হক রায়হানের সঞ্চালনায় সম্মেলনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন- আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক বেগম ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক বাবু সুজিত রায় নন্দী, নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরী।

অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক শিহাব উদ্দিন শাহীন, সহিদ উল্যাহ খান সোহেল।

এছাড়া কবিরহাট উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কামরুন নাহার শিউলী, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল ওয়াদুদ পিন্টুসহ আরও অনেকে উপস্থিত ছিলেন।

ওবায়দুল কাদের আওয়ামী লীগের স্থানীয় বিরোধ নিষ্পত্তি নিয়ে বক্তব্য দিতে গিয়ে আরও বলেন, নোয়াখালী-৪ আসনের এমপি একরামুল করিম চৌধুরীর বড়ভাই মোহাম্মদ ইব্রাহীম তার পক্ষে আমার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। একরাম চৌধুরী নিজেও আমার কাছে ক্ষমা চেয়েছেন। অতীতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমার কাছে কাল থেকে অনেকে বিভিন্ন সময়ের ঘটনাকে কেন্দ্র করে বক্তব্যের ভিডিও পাঠিয়েছেন। রাজনীতি করতে হলে অনেক কিছু ভুলে যেতে হয়। আমিও তাদেরকে ক্ষমা করে দিয়েছি।

কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বক্তব্য দিতে গিয়ে একরামুল করিম চৌধুরী এমপিও দলীয় সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে ক্ষমা চাওয়ার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

এদিকে সম্মেলন শেষে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা করেন।

একরামুল করিম চৌধুরী এমপির বড়ভাই মোহাম্মদ ইব্রাহীমকে সভাপতি এবং কবিরহাট পৌরসভার মেয়র জহিরুল হক রায়হানকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। মেয়র জহিরুল হক রায়হানও একরামুল করিম চৌধুরী এমপির ভাগনে। তিনি বর্তমানে কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন।

 

শেয়ার করুন »

মন্তব্য করুন »